Friday , April 19 2024

ইতালির শহরে নামাজে নিষেধাজ্ঞা, বাংলাদেশিদের বিক্ষোভ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ইতালির বন্দরনগরী মনফালকোন। দীর্ঘ ২০ বছর ধরে সেখানে অন্যান্য সম্প্রদায়ের মানুষের সঙ্গে তুলনামূলক শান্তিপূর্ণভাবেই বসবাস করে আসছিলেন মুসলমানরা। তবে হঠাৎ পবিত্র কোরআনের দুটি আংশিক পুড়ে যাওয়া পৃষ্ঠাসংবলিত খাম দেখে চমকে উঠেন মুসল্লিরা। আর বিষয়টি এমন সময়ে ঘটে যখন শহরের ইসলামবিরোধী কট্টর ডানপন্থি মেয়র আনা মারিয়া সিসিন্ট সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে নামাজ নিষিদ্ধ করেছেন। এতে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বাসিন্দারা। তাদের সঙ্গে যোগ দেন প্রবাসী বাংলাদেশিরাও। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

দারুস সালাম মুসলিম সাংস্কৃতিক সমিতির ঠিকানায় এই খামটি পাঠানো হয়েছে। সমিতির সভাপতি বোউ কোনাতে বলেন, ‘এটি বেদনাদায়ক। চূড়ান্ত অপমান, যা আমরা কখনই আশা করিনি। তবে এটা কোনো কাকতালীয় ঘটনা নয়। চিঠিটি আমাদের জন্য একটি হুমকিস্বরূপ।’

সম্প্রতি মনফালকোন শহরের জনসংখ্যা ৩০ হাজারের ঘর পার হয়েছে। তাদের মধ্যে বড় একটি অংশ মুসলমান। দ্রুত জন্মহার হ্রাস পাওয়া একটি দেশে এমন ইতিবাচক বৃদ্ধিকে সব সময় ভালোভাবে গ্রহণ করা হয়। তবে এই শহরে এর উল্টোটা ঘটেছে। শহরের এই জনসংখ্যা বৃদ্ধিকে স্বাগত জানাননি ইসলামবিরোধী মেয়র আনা মারিয়া। তিনি ২০১৬ সাল থেকে এই শহরের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

গত ২০ বছর ধরে আউটসোর্সিং শ্রমনীতির কারণে প্রধানত বাংলাদেশ থেকে দক্ষ বিদেশি কর্মীদের প্রচুর আগমন ঘটেছে মনফালকোন শহরে। এর সঙ্গে বাংলাদেশি সম্প্রদায়কে পারিবারিক পুনর্মিলন নীতির মাধ্যমে আত্মীয়দের নিতে উৎসাহিত করা হলে এই সংখ্যা আরও বাড়ে। সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বর্তমানে এই শহরটির অভিবাসী মানুষের সংখ্যা ৯ হাজার ৪০০। তাদের মধ্যে বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের সংখ্যা ৬ হাজার ৬০০ জন।

গত নভেম্বরে শহরের সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে নামাজ নিষিদ্ধ করেন মেয়র আনা মারিয়া। তার আগে গত গ্রীষ্মে তিনি সমুদ্রসৈকতে মুসলিম নারীদের বোরকার মতো একটি পোশাক পরা নিষিদ্ধ করেছিলেন। শহরের বাংলাদেশি অভিবাসী ও অন্যরা বলছেন, সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে নামাজ এবং সমুদ্রসৈকতে বোরকা নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত ইসলামবিরোধী এজেন্ডার অংশ।

৪০ বছর ধরে ইতালিতে বসবাস করছেন প্রকৌশলী কোনাতে। তিনি বলেন, এই সিদ্ধান্ত সমাজে বিশাল প্রভাব ফেলেছে। আমরা এখানে ২০ বছরের বেশি সময় ধরে শান্তিপূর্ণভাবে নামাজ পড়ে আসছিলাম। তবে এটি কেবল নামাজের জায়গা ছিল না। মানুষজন এখানে দেখা করতে, আড্ডা দিতে আসত। শিশুরা স্কুল শেষে এখানে আসত। ইউরোপজুড়ে অনেক ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র রয়েছে যেখানে আপনি নামাজ পড়তে পারেন এবং কেউ এতে বাধা দেয় না।

তবে শহরের মেয়র আনা মারিয়া বলেন, আমি নামাজ পড়তে নিষেধ করিনি। এই জায়গাটাকে তারা ভিন্নভাবে ব্যবহার করে আসছিলেন। নামাজের জন্য মসজিদ আছে। তাদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে।

About somoyer kagoj

Check Also

ইসরায়েলে হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে ইরান, যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সিরিয়ায় ইরানের কনস্যুলেটে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত হয়েছেন অন্তত ১৩ জন। এ হামলার পেছনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *