Saturday , April 13 2024

প্রধান বিচারপতির বাসভবনে সাবেক ১০ প্রধান বিচারপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের সরকারি বাসভবন ঘুরে গেলেন সাবেক ১০ প্রধান বিচারপতি। একটি ফলক উন্মোচন উপলক্ষে এসেছিলেন তারা। দীর্ঘদিন পর নিজেদের মধ্যে সাক্ষাতে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বিচারপতিরা।

রবিবার (১৭ ডিসেম্বর) বিকালে রাজধানীর হেয়ার রোডের ১৯ নম্বর বাসার ভেতরে স্থাপিত একটি ফলকের উন্মোচন করেন বর্তমান প্রধান বিচারপতি। ফলটিতে বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় প্রধান বিচারপতির বাসভবনের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। বিগত বছরগুলোতে এ বাসাতেই অবস্থান করেছেন সাবেক এই প্রধান বিচারপতিরাও।

এদিন বিকালে প্রধান বিচারপতির বাস ভবনে একে একে প্রবেশ করতে থাকেন ১০ জন সাবেক প্রধান বিচারপতি, আপিল বিভাগের বর্তমান বিচারপতিরা, অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিনসহ সুপ্রিম কোর্টের প্রশাসনিক কর্মকর্তারা।

ফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে উপস্থিত সাবেক ১০ প্রধান বিচারপতি হলেন— এ টি এম আফজাল, কে এম হাসান, সৈয়দ জে আর মোদাচ্ছির হোসেন, মো. রুহুল আমিন, মো. তফাজ্জাল ইসলাম, মোহাম্মদ ফজলুল করিম, এ বি এম খায়রুল হক, মো. মোজাম্মেল হোসেন, সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

ভবনের প্রধান প্রবেশ পথে দাঁড়িয়ে সাবেক প্রধান বিচারপতিদের স্বাগত জানান প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। দীর্ঘ বিরতির পর একত্রিত হওয়ায় নানান গল্পে মেতে ওঠেন তারা। এরপর তাদেরকে সঙ্গে নিয়েই মূল গেটের পাশে স্থাপিত বাড়িটির ইতিহাস সংবলিত বাংলা ও ইংরেজি নামফলকের মোড়ক উন্মোচন করেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।

পরে সাবেক বিচারপতিরা ভবনের সামনে গ্রুপ ফটোসেশনে অংশ নেন। পুরোটা সময় সাবেক প্রধান বিচারপতিদের দেখভালে বিশেষ নজর রাখছিলেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সদ্য পলিশ করা ভবনটির চারপাশে চলছে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ। ভবনটির সামনের অংশ একটি ঝড়না রয়েছে। তার চারপাশে রোপণ করা হয়েছে নানা রঙের ফুলের গাছ। আর বাড়ির পেছনে চাষাবাদ করা হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির দেশি সবজি।
ফটোসেশন শেষে বর্তমান প্রধান বিচারপতিসহ সাবেক ১০ প্রধান বিচারপতি নিজ নিজ হাতে বৃক্ষরোপণে অংশ নেন। প্রত্যেকেই ভবনের আঙ্গিনায় একটি করে আমের চারা রোপণ করেন।

বৃক্ষরোপণ শেষে সাবেক ও বর্তমান প্রধান বিচারপতি ও অন্যান্য বিচারপতিরা দেশ-দেশের মানুষ এবং বিচার বিভাগের কল্যাণে মোনাজাতে অংশ নেন। মোনাজাত শেষ হতেই নেমে আসে সন্ধ্যা। মুয়াজ্জিনের মাগরিবের আজান ভেসে আসতে থাকে। তাই মোনাজাত শেষে সবাই প্রধান বিচারপতির ভবনে প্রবেশ করেন। সন্ধ্যার সঙ্গে সঙ্গে ভবনের চারপাশে আলো জ্বলে উঠতে শুরু করে। প্রধান বিচারপতিদের লাগানো গাছের চারাগুলোর ভিজে থাকা পাতায় ঝলক দিতে থাকে একরাশ আলো।

About somoyer kagoj

Check Also

২১ ফেব্রুয়ারি ঘিরে নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই : ডিএমপি কমিশনার 

বিশেষ প্রতিনিধি: ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান বলেছেন, একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *